এবার নাম লেখাল সুইজারল্যান্ডে, নিষিদ্ধ হল বোরকা-নিকাব

 

সুইজারল্যান্ডে বোরকা নিষিদ্ধের গণভোটে পঞ্চাশ শতাংশের বেশি মানুষ পক্ষে মত দেয়। বোরাকার সঙ্গে সম্পূর্ণ মুখ ঢাকা পোশাক নিকাব ও হিজাবও প্রকাশ্যে পরিধান নিষিদ্ধ করা হয়েছে। সম্প্রতি ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশে বোরকা ও হিজাব নিষিদ্ধ করা হয়েছে। সেই তালিকায় এবার নাম লেখাল দেশটি।

সুইজারল্যান্ডের নিয়ম অনুযায়ী যেকোনও বিষয়ে এক লাখ মানুষ স্বাক্ষর প্রদান করলে সেই প্রস্তাবের ওপর জাতীয় ভোট অনুষ্ঠিত হয়। গণভোটে ৫১ দশমিক দুই শতাংশ মানুষ রবিবার (৭ মার্চ) প্রস্তাবটির পক্ষে রায় দিয়েছেন।

তবে দেশটির ২৬টি ক্যান্টনের (প্রশাসনিক অঞ্চল) ছয়টিতে বেশিরভাগ মানুষ এই প্রস্তাব সমর্থন করেননি। এই ছয় ক্যান্টনের মধ্যে রয়েছে দেশটির সবচেয়ে বড় তিন শহর জুরিখ, জেনেভা ও বাসেল। এছাড়া রাজধানী বার্নের অধিকাংশ মানুষও ছিলেন বিপক্ষে।

প্রস্তাব অনুযায়ী, কোনও ব্যক্তি জনসমক্ষে মুখ ঢেকে রাখতে পারবেন না। রেস্টুরেন্ট, স্টেডিয়াম, গণপরিবহণ এমনকি রাস্তায় হাঁটার ক্ষেত্রেও মুখ আবৃত করে এমন পোশাক পরা যাবে না। তবে ধর্মীয় উপাসনালয় এবং নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যগত কারণে এই নিয়ম প্রযোজ্য হবে না। অর্থাৎ করোনা থেকে রক্ষায় মাস্ক পরতে কোনও সমস্যা নেই। সেই সঙ্গে প্রার্থনাস্থলে এই নিয়মের ছাড় দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, ইউরোপের বিভিন্ন দেশে কোথাও বোরকা, কোথাও হিজাব নিষিদ্ধ রয়েছে। তার মধ্যে অন্যতম হল ফ্রান্স জার্মানি, বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ড, ডেনমার্ক প্রভৃতি।

তবে, ২০১১ সালে ফ্রান্স প্রথম প্রকাশ্যে বোরকা ও নিকাব ব্যবহারের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। ২০১৪ সালে ইউরোপিয়ান মানবাধিকার আদালত সেই রায়ের উপর স্থগিতাদেশ দেয়। জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিটি জানায়, এই ধরনের নিষেধাজ্ঞা মুসলিম মেয়েদের স্বাধীনতার বিরোধী।

 

 

আপনার মতামত প্রদান করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের অন্যান্য