ভুয়া সাংবাদিক নাইম তালুকদারের বিরুদ্ধে শাল্লা থানায় অভিযোগ


শাল্লা প্রতিনিধি : এক হলুদ সাংবাদিকের কাছে জিম্মি শাল্লার সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ। ভুইফোড় একাধিক অনলাইন পোর্টালের কার্ড গলায় ঝুলিয়ে দিনের পর দিন এই চাঁদাবাজ সাংবাদিকের অত্যাচারে অতিষ্ট এখন ওই অঞ্চলের সাধারণ লোকজনও। চাঁদাবাজ ওই হলুদ সংবাদকর্মীর নাম নাইম তালুকদার। তিনি দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার দূর্গাপুর গ্রামের আলাই মিয়ার ছেলে। নাইমের অব্যাহত চাঁদাবাজি এবং হলুদ সাংবাদিকতার কবলে পড়ে খোদ মূল ধারার সংবাদকর্মীদের পেশাও আজ হুমকীর মুখে।

এ ব্যাপারে আইনগত হস্তক্ষেপ কামনা করে চলতি মাসের ১১ নভেম্বর শাল্লা থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেছেন সংবাদকর্মী বিপ্লব রায়। অভিযোগপত্রে বিপ্লব রায় উল্লেখ করেন, নাইম তালুকদার তাঁর সহযোগী দেলোয়ারকে সাথে নিয়ে শাল্লা হাসপাতালের স্টোর কিপার জগন্নাথ রায়ের বিরুদ্ধে বিভিন্ন কুরুচীপূর্ণ ও মিথ্যা সংবাদ প্রচার করে। ‘হাসপাতালের ওই সংবাদ প্রচারকালে জগন্নাথ রায়ের সাথে অপ্রাসঙ্গিকভাবে বিপ্লব রায়কেও জড়ানো হয়েছে, যা দীর্ঘদিনের সৎ সাংবাদিকতার উপর চটেপাাঘাত। তিনি এ ব্যাপারে দ্রুত আইনগত হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

জানাগেছে, দীর্ঘদিন থেকে গলায় কার্ড এবং বোম হাতে নিয়ে নাইম তালুকদার চাঁদাবাজি কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। চাহিদা অনুযায়ী টাকা না পাওয়া গেলে পরবর্তীতে বিভিন্ন ভুইফোড় অনলাইনে সংবাদ প্রচার করে বিভিন্ন লোকজনকে সামাজিকভাবে হেয় করে থাকেন।

শাল্লার আলিম নামের বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থায় কর্মরত এক যুবক জানান, নাইম তালুকদার গেলো অক্টোবর মাসে তাদের অফিসে এসে ১৫ হাজার টাকা চাঁদাদাবি করেন। পরে অফিসের উর্ধ্বতন কর্তপক্ষকে বিষয়টি অবগত করার পর নাইম তালকদারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের পদক্ষেপ নিলে ধুর্ত নাইম স্বশরীরে পা ধরে ক্ষমা চেয়ে রক্ষা পান।

আপনার মতামত প্রদান করুন
  • 91
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের অন্যান্য