সিলেটে সাংবাদিকের বাসায় হামলা, আসামী গ্রেফতারে ৫ দিনের আল্টিমেটাম

সিলেটের সাংবাদিক মুজিবুর রহমান ডালিমের বাসায় হামলা ভাংচুর ও লুটপাটকারীদের গ্রেফতার করতে ৫ দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছে শহরতলীর শাহপরান আবাসিক এলাকার বাসিন্দারা।

হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি, সিলেট জেলা সভাপতি ও হযরত শাহজালাল (রহ:) কাছিমুল উলুম মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা মুহিব্বুল হক্ব ঐ কর্মসূচী ঘোষণা করেন। কর্মসূচী অনুযায়ী ২ ডিসেম্বরের মধ্যে মাদক কারবারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার না করলে ৩ ডিসেম্বর সিলেট-তামাবিল সড়ক অবরোধ করা হবে।

শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) রাতে শাহপরান উপশহরে মাওলানা মুহিব্বুল হক্বের সভাপতিত্বে এক জরুরী সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় বক্তব্য রাখেন চৌমুহনী বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন, শাহপরান উপশহরের বাসিন্দা সোহেল আহমদ, মোহাম্মদ আলী খোকন, মিটু আহমদ, আবু জাফর জাহাঙ্গির, জিলুক আহমদ, কালা মিয়া, জলিল মিয়া, মুসলেহ উদ্দিন, রকিবুল ইসলাম লস্কর, সিরাজুল ইসলাম, আব্দুল মুনিম, আব্দুল কুদ্দুস, কামাল মিয়া, মাসুক আহমদ, আবুল কাসেম, আব্দুল বাতেন চৌধুরী নাদের, ফারুক আহমদ, আল-আমীন, সালেহ আহমদ, হেলাল মিয়া, আব্দুস সামাদ, দেলোয়ার হোসেন, ফিরোজ আহমদ, শেখর রঞ্জন দাসপ্রমুখ।

জরুরী সভা চলাকালীন সেখানে উপস্থিত হন সিলেট জেলা জাতীয় পার্টির সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব কুনু মিয়া, বিশিষ্ট সমাজ সেবীহুমায়ুন কবির চৌধুরী, দক্ষিণ সুরমা জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব তাজ উদ্দিন আহমদ এপলু, তেতলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ ফারুক মিয়া প্রমুখ। অতিথিরা বক্তব্যে শাহপরান উপশহরবাসীর কর্মসূচীর সাথে একাত্বতা ঘোষণা করেন। সেই সঙ্গে আগামীতে যে কোনো ধরণের কর্মসূচী গ্রহণ করলে তাতেও একাত্ব থাকবেন বলে বক্তারা জানান। সাংবাদিক ডালিমের বাসায় হামলাকারী মাদক কারবারীদের অবিলম্ভে গ্রেফতারেরও দাবী জানান বক্তারা।

প্রসঙ্গত, দৈনিক সিলেটের দিনরাত পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক এবং জাতীয় দৈনিক বাংলাদেশের আলো পত্রিকার সিলেট ব্যুরো প্রধান মুজিবুর রহমান ডালিমের বাসায় গত ২৬ নভেম্বর রাত আটটার দিকে একদল মাদক কারবারী ও চাঁদাবাজ সন্ত্রাসী হামলা চালায়। মাদক ব্যবসার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় ওই হামলার ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, শাহপরান উপশহরে দুই/তিন মাস আগে বাসা বাড়ি নির্মাণ করে স্ত্রী ও শিশু সন্তানদের নিয়ে বসবাস শুরু করেন সাংবাদিক ডালিম। কয়েকদিন না যেতেই তিনি বুঝতে পারেন তাঁর বাসার কাছের তিনটি বাসা থেকে মাদক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে দুর্বৃত্তরা। ইতোমধ্যে ওই এলাকার মসজিদের মুসল্লিরা বৈঠক করে ওই মাদক আস্তানার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেন। এ নিয়ে দফায় দফায় বৈঠক হয়। শেষ বৈঠকে সাংবাদিক ডালিমও অংশ গ্রহণ করেন। ওই বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয় মাদক কারবারিদের বিরুদ্ধে লিখিতভাবে পুলিশকে অবহিত করা। দায়িত্ব দেয়া হয় সাংবাদিক ডালিমসহ কয়েকজনকে।

দায়িত্ব পেয়েই সাংবাদিক ডালিম পুলিশ বরাবরে একটি আবেদন করেন ১১ নভেম্বর। ওই আবেদনে শাহপরান উপশহরের বাসিন্দারা ও খাদিম চৌমুহনী বাজারের ব্যবসায়ীরা স্বাক্ষর করেন। আবেদন দেয়ার আগে থেকে মাদক কারবারিরা নানাভাবে হুমকি দিয়ে আসছিল।

আবেদন পাওয়ার পর ওই এলাকায় পুলিশ অভিযান বাড়িয়ে দেন। দুইদিন আগে ওই এলাকা থেকে পুলিশ ইয়াবাসহ ২ জনকে আটক করেন। বৃহস্পতিবার রাত ৭ টার দিকে র‌্যাব-৯ অভিযান চালিয়ে চোলাই মদসহ কানাই নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে। র‌্যাব সদস্যরা কানাইকে নিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগের পরপরই সাংবাদিক ডালিমের বাসায় হামলা চালায় মাদক ব্যবসায়ী সন্ত্রাসীরা। মাদক সন্ত্রাসী সাক্ষাত, রুনি, শাওন, শাকিল , নীতি ও শ্যামলীর নেতৃত্বে হামলা চালিয়ে সাংবাদিক ডালিমের বাসায় ব্যাপক ভাঙচুর করে। সিসি ক্যামেরাসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র লুটপাট করে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। যাওয়ার সময় সন্ত্রাসীরা সাংবাদিক ডালিমের শিশু সন্তানদের প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে যায়।

ঘটনার পরপরই রাতে সাংবাদিক মুজিবুর রহমান ডালিম বাদি হয়ে শাহপরান থানায় মামলা করেন। মামলায় শাহপরান উপশহর এলাকার মাদকের হাটের নিয়ন্ত্রক সুগা রানী তাতীসহ ৭ জনকে আসামি করা হয়। মামলা নং-২৬, ২৭/১১/২০২০ ইং।
মামলার অপর আসামিরা হচ্ছে- শাহপরান উপশহরের বাসিন্দা মৃত সোনা তাতীর ছেলে সাক্ষ্যাৎ তাতী, শাকিল মিয়া, কানাই তাতীর ছেলে শাওন তাতী, শাকিল মিয়ার স্ত্রী মোছাঃ রীনা বেগম ওরফে রুনী তাতী, কানাই তাতীর মেয়ে শ্যামলী বসাত ও খাদিম চা বাগান এলাকার কালা ময়না।

মামলার এজাহারে সাংবাদিক ডালিম উল্লেখ করেছেন- তিনি সম্প্রতি সময়ে শাহপরাণ এলাকার শাহপরান উশপহরের রোড নং-৩/এ (৪) নং বাসা ক্রয় করে বসবাস করছেন। গত তিন মাস ধরে তিনি ওই বাসায় নির্মাণ কাজ অব্যাহত রেখেছেন। গত সোমবার বাসায় কাজ করার সময় আসামি সাক্ষাৎ, শাকিল, শাওন ও রুনি এসে তার কাছে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পূর্বে তাদের কথা মতো চাঁদা না দেয়ায় রাতে আসামি সুগা রানী তাতীর নেতৃত্বে সন্ত্রাসী ও মাদকসেবীরা তার বাসায় হামলা চালায়। আসামিরা বাসার গেইট ভেঙ্গে জোরপূর্বক ভেতরে প্রবেশ করে। তারা বন্ধ করা দরজাও ভেঙ্গে ফেলে। ড্রয়িং রুমের জানালার থাই, ঘরের বাইরে থাকা সিসিটিভি ক্যামেরা ভাংচুর করে। তারা এলোপাতাড়ি ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। আসামিরা ঘরের ভেতরে রাখা ইলেকট্রিক সামগ্রী, দুটি সিসি ক্যামেরা চুরি করে নিয়ে যায়।

এদিকে সাংবাদিক ডালিমের বাসায় হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের প্রতিবাদে সিলেট শহরতলির শাহপরান উপশহরসহ আশপাশ এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। ক্ষোভ বিরাজ করছে সাংবাদিক সমাজে। বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ সাংবাদিক ডালিমের বাসায় গিয়ে সমর্মিতা জানাচ্ছেন। সাংবাদিক ডালিমের মাদক বিরোধী অবস্থানের প্রতি একাত্মতা ঘোষণা করেছেন সবাই। ঘটনার জন্যে তীব্র নিন্দা জানিয়ে মাদক কারবারিদের অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছেন সবাই।

শুক্রবার জুম্মার নামাজের পর শাহপরান খাদিম চৌমহনী এলাকায় সর্বস্তরের নাগরিক মানববন্ধন করেছেন। এতে বক্তব্য রাখেন সাংবাদিক ডালিমসহ চৌমহনী বাজার কমিটির সেক্রেটারি জয়নাল আবেদীন, সোহেল আহমদ সহ অন্যান্যরা। মানববন্ধন থেকে অবিলম্বে মাদক কারবারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের দাবি জানানো হয়। অন্যথায় কঠোর কর্মসূচি নেয়া হবে বলে বক্তারা উল্লেখ করে।

জকিগঞ্জ টাইমস/আর এম/৩৬

আপনার মতামত প্রদান করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের অন্যান্য