হাঙ্গরের সঙ্গে লড়াই করে স্ত্রীকে বাঁচালেন স্বামী

নিউজ ডেস্কঃ ভালোবাসার আরও এক জয়। বিশাল এক হাঙ্গরের মুখ থেকে স্ত্রীকে একপ্রকার কেঁড়ে আনলেন স্বামী। হাঙ্গরটি স্ত্রীর পা কামড়ে ধরে তা দেখে সার্ফার করা স্বামী দ্রুত ছুটে যান, হাঙ্গরের ওপর বোর্ডের আঘাত আর ক্রমাগত কিল-ঘুষি মেরে ভয়ঙ্কর প্রাণীটিকে বাধ্য করেন স্ত্রীকে ছেড়ে দিতে।

শনিবার সকালে অস্ট্রেলিয়ার নিউ সাউথ ওয়েলসের শেলি সৈকতে ঘটেছে এ ঘটনা। ভুক্তভোগী স্ত্রীর নাম শ্যান্টেল ডয়োলি (৩৫) এবং তার স্বামীর নাম মার্ক র‌্যাপলে।

নিউ সাউথ ওয়েলসের মধ্য উত্তর উপকূলের সৈকতে সমুদ্রস্নানে নেমেছিলেন ৩৫ বছরের ডয়োলি। স্বামী মার্ক র‌্যাপলে সার্ফ করছিলেন কাছেই। দুজনের মধ্যে টুকটাক কথাবার্তাও চলছিল। এরই মধ্যে হঠাৎ চিৎকার করে ওঠেন ডয়োলি। সার্ফিং বোর্ডে থেকেই র‌্যাপলে দেখেন বিশালাকার এক হাঙ্গর আক্রমণ করেছে তার স্ত্রীকে। কামড়ে ধরেছে ডান পা। ছাড়া পাওয়ার প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু কিছুতেই বিশাল সাদা হাঙ্গরটির সঙ্গে পেরে উঠছেন না ডয়োলি।

অবস্থা দেখে একটুও বিলম্ব না করে প্রথমে সার্ফিং বোর্ড দিয়েই হাঙ্গরের গায়ে আঘাত করলেন র‌্যাপলে। কিন্তু নাছোড়বান্দা হাঙ্গর, বারবার বোর্ডের আঘাতেও সে পিছু হঠছে না। উপায় না দেখে পানিতে ঝাঁপিয়ে পড়লেন স্বামী র‌্যাপলে। সর্বশক্তি দিয়ে ঘুষি মারতে শুরু করলেন হাঙ্গরের গায়ে। অবশেষে ডয়োলির পা ছাড়ল সাদা জলদানবটি। র‌্যাপলে স্ত্রীকে তুলে আনলেন সৈকতে। এরপরই একটি হেলিকপ্টার অ্যাম্বুলেন্স এসে ডয়োলিকে নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে।

অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিসের পরিদর্শক অ্যান্ড্রু বেভারলি বলেন, আমরা বা প্যারামেডিক চিকিৎসকরা আসার আগে র‌্যাপলে ও সার্ফ লাইফ সেভিং-এর সদস্যরা যেভাবে ডয়োলিকে উদ্ধার করেছেন তা আসলেই অসাধারণ। তারা তাৎক্ষণিকভাবে এমন পদক্ষেপ না নিলে হয়তো ওই নারীকে বাঁচানো সম্ভব হতো না।

পোর্ট ম্যাকুয়েরের বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, ডয়োলিকে সম্ভবত ১০ ফুট লম্বা ও হিংস্র কোনও গ্রেট হোয়াইট শার্ক আক্রমণ করেছিল। হাঙ্গরের কামড়ে তার ডান পা মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এদিকে সার্ফ লাইফ সেভিং এনএসডব্লিউর প্রধান নির্বাহী স্টিভেন পিয়ার্স বলেন, স্ত্রীর জন্য ওই ব্যক্তির এই পদক্ষেপ নিঃসন্দেহে বীরোচিত। স্টিভেন বলেন, অন্যান্য বছরের চেয়ে এই বছর ওই এলাকায় হাঙ্গরের আনাগোনা তুলনামূলক বেশিই। সেই কারণে আগে থেকে আমরা সতর্ক করেছি পর্যটকদের। শনিবারের ঘটনাটি খুবই অনাকাঙ্ক্ষিত।

স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে, গত একমাসের মধ্যে এটি অস্ট্রেলীয় উপকূলে তৃতীয়বার হাঙ্গরের হামলার ঘটনা।

এদিকে এই ঘটনার কারণে নিউ সাউথ ওয়েলসের একাধিক সৈকত সাময়িকভাবে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। সৈকত এলাকায় টাঙানো হয়েছে সতর্কতার সাইনবোর্ড। সূত্র: বিবিসি।

বিথী

আপনার মতামত প্রদান করুন
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
এ বিভাগের অন্যান্য